বাংলাদেশ, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯

নতুন মুদ্রানীতি নিয়ে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্টদের প্রত্যাশা

প্রকাশ: ২০১৯-০১-১৫ ১৯:৫৩:২৪ || আপডেট: ২০১৯-০১-১৫ ১৯:৫৮:৪৮

তৌফিক রাহাত »

জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে বাংলাদেশ ব্যাংক ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের মুদ্রানীতি ঘোষণা করবে। বাংলাদেশ ব্যাংক বছরে দুইবার মুদ্রানীতি ঘোষণা করে। একটি জানুয়ারি ও অন্যটি জুলাই মাসে। জুলাই থেকে শুরু হওয়া অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের ( জানুয়ারি –জুন) মুদ্রানীতি এটি।

নতুন এই মুদ্রানীতিকে ঘিরে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী ওপুঁজিবাজারের বিনিয়োগকারীদের মধ্যে নতুন আশার সঞ্চার হয়েছে। তাদের প্রত্যাশা, মুদ্রানীতিতে ব্যাংকে সিঙ্গেল ইন্টারেস্ট রেট কার্যকর, সঞ্চয়পত্রের সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিটে আনায়ন, ব্যাংকের সিএসআর ও সিএলআর কমানো, ডলারের মূল্য নির্দিষ্ট সীমায় আনাসহ সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে সম্প্রসারণমূলক মুদ্রানীতি অনুসরণ করা হবে ।

• ব্যাংকে সিঙ্গেল ইন্টারেস্ট রেট কার্যকর করা
• সঞ্চয়পত্রের সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিটে আনা
• ব্যাংকের সিএসআর ও সিএলআর কমানো
• ডলারের মূল্য নির্দিষ্ট সীমায় রাখা
• সম্প্রসারণমূলক মুদ্রানীতি অনুসরণ

বিগত ২০১৮ সালের ৩১ জুলাই বাংলাদেশ ব্যাংক ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম মুদ্রানীতি ঘোষণা করে। এতে মূল্যস্ফীতির চাপ হ্রাসকরণে বাজারে অর্থের সরবরাহ উল্লেখযোগ্য মাত্রায় কমিয়ে আনতে সরকারি খাতে ব্যাংকঋণের চাহিদা কম থাকায় অভ্যন্তরীণ ঋণের জোগান প্রবৃদ্ধি ১৫ দশমিক ৮ শতাংশে রাখার নীতি ঘোষণা করা হয়। তাছাড়া বেসরকারি খাতে ব্যাংক খাতের ঋণের জোগান প্রবৃদ্ধি ১৬ দশমিক ৮ শতাংশে রাখার লক্ষ্যমাত্রা স্থির করা হয়।

৭ দশমিক ৮ শতাংশ জিডিপি অর্জনের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও ডিসেম্বরের আগেই তা অর্জনের কথা ঘোষণা করে সরকার। ফলে গত অর্ধের মুদ্রানীতিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির প্রবৃদ্ধিসহায়ক মুদ্রানীতি বলে যে ঘোষণা দিয়েছেন তা সাফল্যের সাথে অর্জিত হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টদের অভিমত। তারা জানান, ব্যাপকভাবে আলোচিত ঋণ ও আমানত অনুপাত (এডিআর) কমানোর বিষয়টি পরিপূর্ণভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে নি কর্তৃপক্ষ ।

বিদ্যমান নগদ সংরক্ষণ অনুপাত (সিসিআর) ও বিধিবদ্ধ তারল্য অনুপাত (এসএলআর) সংরক্ষণের পর যে সীমা পর্যন্ত ঋণ প্রদান করা যায় অনেক বেসরকারি ব্যাংক সে সীমার অতিরিক্ত ঋণ বিতরণ করার অভিযোগ আছে। এক অঙ্কের সুদের হার নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সরাসরি নির্দেশনা থাকলেও তা সবাই মেনে চলছে না বলে সংশ্লিষ্টদের অভিযোগ।

এই পরিপ্রেক্ষিতে আসন্ন মদ্রানীতি নিয়ে প্রত্যাশার বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিস’র সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ব্যবসায়ীরা মসৃণ ও স্থিতিশীল অর্থনৈতিক সেক্টর চাই যাতে ব্যবসায়ীরা সহজে ব্যবসা করতে পারে। তাছাড়া দ্রুত এক অঙ্কের সুদের হার ব্যাপকভাবে কার্যকর করতে আরো তৎপর হতে হবে।

অর্থনীতির বড় বাজার পু্ঁজিবাজারে মুদ্রানীতির সরাসরি প্রভাব না থাকলেও পরোক্ষভাবে এর প্রভাবকে অস্বীকার করা যায় না। মু্দ্রানীতির অনেক পলিসি পুঁজিবাজারকে প্রভাবিত করে।

মীনহার সিকিউরিটিস লিমিটেডের প্রধান (অপারেশন অ্যান্ড ফিন্যান্স) নয়ন কান্তি বড়ুয়া আসন্ন মুদ্রানীতিতে তাঁর প্রত্যাশার কথা জানাতে গিয়ে বলেন, সঞ্চয়পত্রের সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিটে নিয়ে আনার পরিকল্পনা নিলে পু্ঁজিবাজার আরো বেগবান হবে। ক্লাসিফাইড লোনগুলো রিশিডিউল না করলে পু্ঁজিবাজারে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। নগদ সংরক্ষণ অনুপাত (সিসিআর) ও বিধিবদ্ধ তারল্য অনুপাত (এসএলআর) কমিয়ে দিলে পু্ঁজিবাজারে ভালো প্রভাব পড়বে। পু্ঁজিবাজারের সাথে পরোক্ষভাবে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি অর্থমন্ত্রী হওয়ায় বিনিয়োগকারীরা উৎসাহিত পাবে।

নারীর ক্ষমতায়নে মুদ্রানীতিতে অনেক পলিসি বিশেষকরে এসএমই খাতে প্রণোদনা দিয়ে থাকে। তাছাড়া নারী উদ্যোক্তার সংখ্যা আনুপাতিক হারে বাড়াতে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

আসন্ন মুদ্রানীতিতে প্রত্যাশার বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্টিস’র প্রেসিডেন্ট মনোয়ারা হাকিম আলী বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের এবারকার ২০১৯ অর্থবর্ষের প্রথমার্ধের মুদ্রানীতি দেশের ব্যবসায়ী-বান্ধব হওয়া চাই।

তিনি আরো বলেন, বৈদেশিক লেনদেন ভারসাম্যের ঘাটতি যাতে সহনযোগ্য মাএায় আনা যায় সে বিষয়গুলো যেন ঘোষিত মুদ্রানীতিতে প্রতিফলিত হয়। তবে জিডিপি’র প্রবৃদ্ধিধারা যাতে ঠিক থাকে এবং জিডিপি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে আমরা যাতে সফল হই সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে। সর্বোপরি, নতুন সরকার, নতুন মুদ্রানীতি সকলের জন্য অর্থনৈতিক আনুকুল্য সৃষ্টি করবে এমনটাই প্রত্যাশা করছি।

বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও আরজেএম ফুটওয়্যার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জসীম আহমেদ আসন্ন মুদ্রানীতিতে তাঁর প্রত্যাশার কথা জানাতে গিয়ে বলেন, বাংলাদেশের রপ্তানি বৃদ্ধিতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। তাই ব্যাংকের তারল্য বাড়ানো প্রয়োজন। এইজন্য সম্প্রসারণমূলক মুদ্রানীতি কাম্য। তাছাড়া ডলারের মূল্য একটি নির্দিষ্টসীমারেখার মধ্যে রাখতে হবে।

প্রসঙ্গত, মূল্যস্ফীতি সহনীয় পর্যায়ে রেখে মুদ্রার সরবরাহ বৃদ্ধি ও জিডিপির প্রবৃদ্ধিকে ত্বরাণ্বিত করার পাশাপাশি কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, দারিদ্র বিমোচন ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির উন্নয়ন ঘটাতে মুদ্রানীতি কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে।

বাংলাধারা/এনসি/টিআর/বি

ট্যাগ :