বাংলাদেশ, মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯

সৌন্দর্য চর্চায় তিলের তেল

প্রকাশ: ২০১৯-০৩-০৫ ১৫:১৫:৩০ || আপডেট: ২০১৯-০৩-০৫ ১৫:১৫:৩৭

তিলের তেল মূলত একটি ভেজিটেবল অয়েল । রান্নায় এর ব্যবহার সবচেয়ে বেশী হয়ে থাকে । তবে সৌন্দর্য চর্চাতেও রয়েছে এর খ্যাতি । তিলের তেলে রয়েছে প্রয়োজনীয় ভিটামিন যেমন – ভিটামিন ই, বি কমপ্লেক্স ও ডি। পাশাপাশি এই তেলে রয়েছে কপার ,জিঙ্ক , ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস । এছাড়াও রয়েছে ফ্যাটি এসিড ।

১. ত্বকের উজ্জ্বলতা সমান করতে : তিলের তেলে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্লামেটরি উপাদান থাকায়, যাদের প বা ত্বকে দাগ ছোপ আছে, তারা দিনে দুই বার এই তেল হালকা করে ম্যাসাজ করে ১৫ মিনিট রেখে দিয়ে, গরম পানিতে ভেজানো তোয়ালে দিয়ে মুছে নিলে, ত্বক অনেকটাই সমানভাবে উজ্জ্বল হয়ে যাবে।

২. শুষ্ক ত্বকের যত্নে এই তেল একটি অসাধারণ ময়েশচারাইজার। পাশাপাশি এতে ডিটক্সিফাইং উপাদান থাকায় শুষ্ক ডেড সেল দূর করে ত্বককে অসম্ভব সফট এবং হাইড্রেটেড করে তোলে। রাতে ঘুমুবার আগে দু ফোঁটা তিলের তেলের সাথে অন্য একটা হালকা তেল মিশিয়ে নেবেন, কেননা এই তেল অনেক ভারী হয়ে থাকে। চাইলে এই তেল আপনি আপনার পছন্দের ফেইস প্যাকেও লাগাতে পারেন, তবে খুব বেশি না, দুই থেকে তিন ফোঁটা পরিমাণে।

৩. ত্বকের বয়সের ছাপ দূর করতে বয়স বিশের পরে তিলের তেল ব্যবহার শুরু করা উচিত। আর যদি আপনি ২৫+ হয়ে থাকেন, তাহলে আজকে থেকেই এই তেল ব্যবহার শুরু করা উচিত। কেননা এই তেলে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে বলে এটি অসাধারণভাবে অ্যান্টি-এজিং-এর কাজ করে। মুখ ভালোভাবে পরিষ্কার করে নিয়ে এই তেল কয়েক ফোঁটা ভালোভাবে অ্যান্টিক্লক ওয়াইজ ম্যাসাজ করবেন। এরপরে গরম পানিতে ভেজানো তোয়ালে মুখের ওপর এক মিনিট পেতে রেখে মুছে ফেলুন।

৪.রোদে পোড়া দাগ দূর করতে : গোসলের আগে ভালোভাবে তিলের তেল সারা শরীরে, যেমন হাত, পা, মুখ, গলা, ঘাড় যেসব জায়গায় বেশি রোদে পোড়া দাগ রয়েছে, সেখানে ভালোভাবে মালিশ করে, এরপরে গরম পানি দিয়ে গোসল করে নিন। এভাবে বেশ কয়েকদিন করলে ভালো উপকার পাবেন।

৫. অকালে চুল পাকা রোধ করতে অনেকের বয়স ত্রিশ ছুঁতে না ছুঁতেই চুল সাদা হওয়া শুরু করে দেয়। এই সমস্যা থেকে আপনাকে বাঁচাতে পারে তিলের তেল। নিয়মিত তিলের তেল মাথার স্ক্যাল্প-এ ম্যাসাজ করুন। তিলের তেল একটু ভারী বলে পুরো চুলে লাগাতে হলে অন্য কোন হালকা তেল যেমন অলিভ অয়েল বা নারকেল তেলের সাথে মিশিয়ে লাগাবেন। অকালে পেকে যাওয়া রোধের পাশাপাশি এটি চুলের রঙকেও কালোকরে তোলে আস্তে আস্তে।

৬.খুশকি ও ফাঙ্গাস দূর করতে চুলে খুশকির সমস্যা থাকলে বা কোনো রকম ফাঙ্গাল ইনফেকশন থেকে থাকলে রোজ রাতে তিলের তেল মাথায় দিয়ে সকালে শ্যাম্পু করবেন। তেলটা কিভাবে বানাবেন? ছোটো এক কাপ তিলের তেল নিয়ে তাতে এক চা চামচ মেথি নিয়ে হালকা আঁচে তেলটা ৫ মিনিটের মত ফুটিয়ে নিয়ে সংরক্ষণ করুন। আশা করি দ্রুতই এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

৭. ডিপ কনডিশনিং করতে ২ টেবিল চামচ তিলের তেল নেবেন, এর সাথে নরমাল হেয়ার-এর জন্য একটা ডিম (অয়েলি হেয়ার-এর জন্য দুটো ডিমের সাদা অংশ এবং শুষ্ক চুলের জন্য দুটো ডিমের কুসুম) মিশিয়ে নিয়ে পুরো চুলে লাগিয়ে নিন। ত্রিশ মিনিট রেখে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে শ্যাম্পু করে নেবেন। সপ্তাহে দুইবার করলেই দেখবেন, মাস খানেকের মধ্যেই চুল সুন্দর হয়ে যাবে। তিলের তেলের এতই গুণ যা নিজেকে সুন্দর ও সুস্থ রাখতে সাহায্য করে ।

সুত্র : অনলাইন ।

ট্যাগ :