বাংলাদেশ, শনিবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৯

অনন্য সৃজনশীলতায় সাড়া ফেলেছে মুন’স

প্রকাশ: ২০১৯-০৯-০১ ১৮:০১:৪৫ || আপডেট: ২০১৯-০৯-০১ ১৮:০৭:৪৯

বাংলাধারা ডেস্ক »

বুটিক হাউজ ব্যবসার চাহিদা ব্যাপক। প্রসারিত হচ্ছে এ সেক্টরটি। এছাড়া তরুণ ও তরুণীরা ফ্যাশনের প্রতি বেশ সচেতন। তাই দেশে গড়ে উঠছে অনেক ফ্যাশন হাউজ, বুটিক হাউজ, জরি হাউজ প্রভৃতি। বুটিক হাউজ ছড়িয়ে পড়েছে দেশের প্রায় সব শহরে। দেশে ও বিদেশে বুটিক হাউজের পোশাকের ভালো চাহিদা রয়েছে।

ঈদ, নববর্ষসহ বিভিন্ন উৎসবে সবাই নতুন পোশাক কেনেন। বিশেষ করে সুতি, খাদি, সিল্ক প্রভৃতি কাপড়ে বুটিক করা হয়। আর এসব বুটিক করা কাপড়ের চাহিদা সব সময়ই থাকে।

এসব চাহিদার কথা মাথায় রেখে অনন্য সব ডিজাইনের দেশীয় বুটিকের পশরা নিয়ে ঢাকার বনানীর ১১ নম্বর রোডে একটি আউটলেটের মাধ্যমে ২০০৭ সালে যাত্রা শুরু করে মুন’স।

শাড়ি, কামিজ, আনস্টিচ, লেহেঙ্গা, ওয়েস্টার্ন ড্রেস, টপস ও সব ধরনের বুটিক পণ্য রয়েছে এখানে। সকল প্রকার বুটিক পণ্যসহ মুনস এ ক্রেতারা পাচ্ছেন পরিপূর্ণ লাইফস্টাইল সলিউশন। মুনস এর নিজেদের ফ্যাক্টরিতেই তৈরি হচ্ছে বিশ্বমানের জামদানি, মসলিন, সুতি, সিল্ক কাপড়ের নানান ধরনের ডিজাইন। আর এগুলো দিয়ে তৈরি হচ্ছে শাড়ি, কামিজ, আনস্টিচ, ওয়েস্টার্ন ড্রেস।

মুন’স এর কর্ণধার নাসরিন জাহান মুনমুন

প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার নাসরিন জাহান মুনমুনের হাত ধরে অভিনব এবং নিত্যনতুন ডিজাইন প্রতিষ্ঠানটিকে অন্যদের থেকে আলাদা করে তুলেছে। আবহমান বাংলার ঐতিহ্যকে প্রতিপাদ্য করে সৃজনশীলতার অনন্য নিদর্শনগুলো উঠে আসে তাঁর প্রতিটি ডিজাইনে। যে কারণে অল্প সময়ের মধ্যেই ক্রেতাদের মধ্যে সাড়া জাগায় মুনস। সম্প্রতি বনানী ১১ নম্বরেই এইচ ব্লক ৪৭ নম্বর ভবনে মুনস এর নতুন একটি শো রুমের উদ্বোধন করা হয়েছে।

নাসরিন জাহান মুনমুন বলেন, আমরা বাংলাদেশের বুটিক পণ্য ও ফ্যাশন পণ্যকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করছি। শিগগিরই আমরা চট্টগ্রামে আউটলেট খুলব।

বাংলাধারা/এফএস/এমআর

ট্যাগ :