বাংলাদেশ, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯

মিরসরাইয়ের সৌর বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে ২০ বছর মেয়াদে বিদ্যুৎ ক্রয় করবে বিপিডিবি

প্রকাশ: ২০১৯-১০-০৯ ১৮:১৪:৪২ || আপডেট: ২০১৯-১০-০৯ ১৮:২৪:০৩

বাংলাধারা প্রতিবেদন »

চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার বারৈয়ারহাটে নির্মাণ-মালিকানা-পরিচালনা (বিওও) পদ্ধতিতে ৫০ মেগাওয়াটের গ্রিড-টাইড সৌর বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করবে আইবি ভোগড জিএমবিএইচ ও এজি অ্যাগো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড কনসোর্টিয়াম।

রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি) এ প্রকল্প থেকে ২০ বছর মেয়াদে বিদ্যুৎ ক্রয় করবে।

সম্প্রতি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে প্রকল্পটি অনুমোদন করা হয়।

বিদ্যুৎ বিভাগের প্রস্তাব অনুযায়ী, বিপিডিবি বিদ্যুৎকেন্দ্রটি থেকে ‘নো ইলেকট্রিসিটি নো পেমেন্ট’ পদ্ধতিতে প্রতি কিলোওয়াট ঘণ্টা বিদ্যুৎ ৮ টাকা ৭৫ পয়সায় ক্রয় করবে।

বিদ্যুতের মূল্য বাবদ ২০ বছরে মোট ১ হাজার ৪১৮ কোটি ৪০ লাখ টাকা ব্যয় হবে বলে প্রস্তাবে বলা হয়েছে।

এছাড়া, মন্ত্রিসভা কমিটি ‘এক্সপোর্ট কসপিটিবনেস ফর জবস’ প্রকল্পে পরামর্শক নিয়োগে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের একটি প্রস্তাব অনুমোদন করেছে। ৪২ কোটি ৮১ লাখ টাকার এ কাজ পেয়েছে আইএমসি ওয়াল্ডওয়াইড লিমিটেড।

পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের একটি প্রকল্পও কমিটির অনুমোদন পেয়েছে। এর মাধ্যমে কক্সবাজার বিমানবন্দর উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় মহেশখালী চ্যানেল ও বাঁকখালী নদীর ঢাল সুরক্ষা কাজের ব্যয় বাড়ানো হয়েছে।

বাংলাদেশ নৌবাহিনী এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। যার ব্যয় ৮৬ কোটি ৭১ লাখ থেকে বেড়ে ২৭৮ কোটি ৪১ লাখ টাকা হয়েছে।

প্রাইভেট সেক্টর পাওয়ার জেনারেশন পলিসি ১৯৯৬ এর আওতায় বিল্ড ওউন অপারেট (বিওও) ভিত্তিতে দেশের চারটি স্থানে প্রতিটি ৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন সৌর বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। দরপত্রের মাধ্যমে স্পন্সর নির্বাচনের প্রস্তাবে বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে ২০১৮ সালের ২৩ এপ্রিল সম্মতি দেওয়া হয়।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (বিউবো) ওয়েবসাইটসহ বিভিন্ন পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করার পর দরপত্রে জার্মানির কনসোর্টিয়াম অব আইবি ভোগড জিএমবিএইচ অ্যান্ড এজি অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড এবং নরওয়ের স্কেয়াটেক সোলার এএসএ নামক দুটি প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়। দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি বারইয়ারহাটে ১৩২/৩৩ কেভি সাবস্টেশনের নিকটবর্তী স্থানের জন্য পাওয়া দুটি যোগ্যতা নির্ধারণী মূল্যায়ন শেষে প্রতিবেদন দাখিল করে।

দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি তার মূল্যায়ন প্রতিবেদনে দুটি প্রতিষ্ঠানকেই প্রাথমিকভাবে যোগ্য হিসেবে সুপারিশ করে। পরবর্তীতে প্রযুক্তি, বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক মূল্যায়নে জার্মানির কনসোর্টিয়াম অব আবি ভোগড জিএমবিএইচ অ্যান্ড এজি অ্যাগো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেকে যোগ্য হিসেবে নির্বাচনের জন্য সুপারিশ করা হয়।

সূত্র জানায়, মূল্যায়ন কমিটির প্রতিবেদন ২০১৮ সালের ১০ ডিসেম্বর বিউবোর সাধারণ বোর্ড সভায় অনুমোদিত হয় এবং আনুষঙ্গিক কাজ সম্পন্ন করা হয়। বিউবোর সুপারিশ অনুযায়ী দাখিল হওয়া যোগ্যতা নির্ধারণী মূল্যায়ন প্রতিবেদন এবং রেসপনসিভ বিডারের ট্যারিফ প্রপোজাল খোলার জন্য বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে চলতি বছরের ১ জানুয়ারি অনুমোদন দেয়া হয়। পরে ১৭ জানুয়ারি বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড বারইয়ারহাট সাইটের একমাত্র রেসপন্সিভ বিডারের আর্থিক প্রস্তাব তাদের প্রতিনিধির উপস্থিতিতে খোলা হয়।

কমিটি মূল্যায়ন প্রতিবেদনে বারইয়ারহাট ১৩২/৩৩ কেভি সাবস্টেশনের কাছাকাছি স্থানে বিল্ড ওউন অপারেট (বিওও) ভিত্তিতে আইপিপি হিসেবে ‘নো ইলেকট্রিসিটি, নো পেমেন্ট’ ভিত্তিতে ৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন সৌর বিদ্যুৎকেন্দ্র বাস্তবায়নের জন্য কনসোর্টিয়াম অফ আইবি ভোগড জিএমবিএইচ অ্যান্ড এজি অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের নাম চূড়ান্ত করে। প্রতি কিলোওয়াট ঘণ্টা বিদ্যুতের দাম ৮ টাকা ৭৫ পয়সা অনুমোদনের সুপারিশ করে।

বাংলাধারা/এফএস/এমআর/টিএম

ট্যাগ :