বাংলাদেশ, বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯

মাটিরাঙ্গায় আঞ্চলিক সংগঠন ‘ইউপিডিএফ (প্রসিত)’ নিষিদ্ধের দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশ: ২০১৯-১০-১৯ ১৩:১৬:২৪ || আপডেট: ২০১৯-১০-১৯ ১৩:১৬:৩০

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি »

পার্বত্যাঞ্চলের পাহাড়ি আঞ্চলিক সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টকে (ইউপিডিএফ, প্রসিত) গ্রুপ সন্ত্রা ঐক্য নামে সকল ষড়যন্ত্রকারীদের প্রতিহত করুন, প্রসিত গ্রুপ সন্রাসীদের ফাঁদে পা দেবেন না এম’ স্লোগানে ইউপিডিএফ নিষিদ্ধ করার দাবিতে খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙ্গায় ঘন্টাব্যাপি মানববন্ধনে উপজেলার সর্বস্তরের ভুক্তভোগি সাধারণ জুম্মপাহাড়ি নেতৃবৃন্দ ও ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক সংগঠন জনগণের এ দাবীর সাথে সংহতি প্রকাশ করে মানববন্ধনে যোগ দেন।

শনিবার (১৯অক্টোবর) সকালের দিকে মাটিরাঙ্গা পুরাতন হাসপাতাল মোড় থেকে একটি মিছিল বের হয়। মিছিলটি মাটিরাঙ্গা পৌরসভার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে মাটিরাঙ্গা কলাবাজার ভাইভাই বোডিংনের সামনে মানববন্ধন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মাটিরাঙ্গা উপজেলার সর্বস্তরের পাহাড়ী জুম্মজাতির আয়োজনে স্থানীয় কার্বারী বিনয় চাকমার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মাটিরাঙ্গা উপজেলার ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিকের সমন্বয়ক সুলেন চাকমা।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, মাটিরাঙ্গা উপজেলা ইউপিডিএফ গণতান্রিকের সহকারি সমন্বয়ক মঙ্গল এিপুরা, তাইন্দং ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার ফনিভূষণ চাকমা, লাচাইমং কার্বারী, মাটিরাঙ্গা কমলা কান্ত কার্বী পাড়ার কার্বারী যুদ্ধমনি চাকমা, প্রমুখ।

প্রধান অতিথি মাটিরাঙ্গা উপজেলা সমন্বয়ক ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিকের সুলেন চাকমা বলেন, ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক পাহাড়ী জুম্ম জনগণের এ দাবীর সাথে সংহতি প্রকাশ করছি দীর্ঘদিন ধরে পাহাড়ে ইউপিডিএফ প্রসিত গ্রুপ যেভাবে পাহাড়ি জুম্মজাতির আন্দোলনের নামে প্রতিনিয়ত পাহাড়ে চাঁদাবাজি করে যাচ্ছেন তা অনেক দিন পর সাধারণ পাহাড়ি জুম্মজাতি বুঝতে পেরেছে তাই আজকে মাটিরাঙ্গা উপজেলার ভুক্তভোগি সাধারণ পাহাড়ি জুম্মুজাতি অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন।

তিনি বলেন, তারা (ইউপিডিএফ, প্রসিত গ্রুপ) শান্ত পাহাড়কে অশান্ত করে রেখেছে। আমরা পাহাড়ে আর কোন মায়ের কান্না দেখতে চাই না, আমরা পাহাড়ে সকল জাতিগোষ্ঠী একসাথে বসবাস করতে চাই।

তিনি আরও বলেন, বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার ১৯৯৭সালের ২রা ডিসেম্বর পার্বত্য অঞ্চলের আঞ্চলিক সংগঠন জেএসএস এর সভাপতি জ্যােতিন্দ্র বোধিপ্রিয় শন্তুলারমা সাথে শান্তিচুক্তি করে। শান্তিচুক্তির সময় জেএসএসের সদস্যরা অস্রজমা দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যায়। কিন্তু চুক্তিকে কালো চুক্তি বলে পাহাড়ে গঠন হলো প্রসিত বিকাশ খীসার আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন ইউপিডিএফ এই সংগঠন গঠনের পর থেকে শান্ত পাহাড় অশান্ত হতে থাকে।

চুক্তির পর পাহাড়ে সকল সম্প্রদায়ের সাধারন জনগণ যখন শান্তিতে বসবাস করছে ঠিক সেই সময় ইউপিডিএফ প্রসিত গ্রুপ পাহাড়ের সাম্প্রদায়ী সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে বদ্ধপরিকর তাই সাধারন জনগন তাদের অন্যায়ের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে পাহাড়ের আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন ইউপিডিএফ’কে নিষিদ্ধের দাবি জানান।

বাংলাধারা/এফএস/এএ

ট্যাগ :