বাংলাদেশ, সোমবার, ২০ জানুয়ারী ২০২০

খালেদা ছাত্রদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ: ২০২০-০১-০৪ ২২:৫৬:১৭ || আপডেট: ২০২০-০১-০৪ ২২:৫৬:২৫

বাংলাধারা ডেস্ক »  

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শনিবার (৪ জানুয়ারি) দুপুর আড়াইটার দিকে আসেন তিনি। পায়রা উড়িয়ে, পতাকা উত্তোলন করে এবং জাতীয় সংগীত গেয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন শেখ হাসিনা।

সকাল সাড়ে ৬টায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর মধ্য দিয়ে সংগঠনটির ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান শুরু হয়। বিকেল ৫টায় প্রধান অতিথির ভাষণ দেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে বলেন, ২০২০ সাল আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বছর।আগামি মার্চ মাস থেকে শুরু হয়ে ২০২১ সাল পর্যন্ত চলবে কাউন্টডাউন। ১৯৭৮ সালের এই দিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিষ্ঠা করা হয় ছাত্রলীগের কমিটি। ঢাকা থেকে বাংলাদেশের সকল জেলায় পৌঁছে দেয়া হত ছাত্রলীগের কার্যক্রম।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন,  আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা হয় ১৯৪৯ সালে। আর এর আগে প্রতিষ্ঠা হয় ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগকে দিয়েই সংগ্রাম শুরু হয় বাংলাদেশ স্বাধীন করার।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৬ দফা আন্দোলন ঘোষণা করার পর জয়বাংলাকে শ্লোগান হিসেবে প্রচার করার জন্য প্রথম ছাত্রলীগকে দিয়ে শুরু করেন বঙ্গবন্ধু। আমাদের পতাকার রং সবুজের মাঝে লাল সূর্য  এটাও ছাত্রলীগকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে যখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কারা বন্দী হন তখন আমার মা কারাগার থেকে নির্দেশনা এনে তা ছাত্রলীগ নেতা কর্মীদের কাছে পৌঁছে দিতেন। কিন্তু আমার মা কখনো সামনে আসেননি। আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহার, বঙ্গবন্ধুকে ছাড়িয়ে আনা এর পিছনে আমার মা  আর ছাত্রলীেগর ভূমিকাই ছিল বেশি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতীয় পর্টি, বিএনপি যাই বলেন, এরা ছাত্রদের হাতে লাঠি আর অস্ত্র তুলে দিয়েছিল।দেশে সন্ত্রাসী তৈরি করে তাদের ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করার জন্য।

বঙ্গবন্ধু একটা দেশ দিয়েছেন, এদেশের মানুষকে স্বাধীনতা দিয়েছেন, কিন্তু নিজের জন্য কখনো কিছু চাননি। তিনি এদেশকে সোনার বাংলায় রূপ দিতে চেয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যাদের নেতা হওয়ার আখাঙ্কা রয়েছে তারা যাতে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত জীবনি বইটা পড়ে  এবং তা পড়া উচিত। আজ ৭ই মার্চ এর ভাষণ আন্তর্জাতিক মর্যাদা পেয়েছে।

তিনি বলেন, আমি ছাত্রলীগের হাতে কলম তুলে দিয়েছি।আর খালেদা ছাত্রদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়েছে।

আজ থেকে ছাত্রলীগকে ভার থেকে মু্ক্ত করে দিলাম।আজ থেকে ছাত্রলীগ ছাত্রলীগই থাকবে বলে ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী। প্রায় বিশ মিনিটের বক্তব্যে তিনি এসব কথাগুলো বলেন।

বাংলাধারা/এফএস/টিএম

ট্যাগ :