বাংলাদেশ, বুধবার, ২৭ মে ২০২০

ঘুরে আসুন বান্দরবান সুয়ালকের হার্টিকালচার বেইজ রিসোর্ট ‘দ্যা কিউবি’

প্রকাশ: ২০২০-০২-০৯ ২০:২২:১৩ || আপডেট: ২০২০-০২-০৯ ২১:০৮:৪১

ইয়াসির রাফা »

বাংলাদেশের পাহাড়কন্যা বান্দরবান প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত এক স্থান। চারপাশে যতদূর চোখ যায় অবারিত সবুজের সমারোহ। হাত বাড়ালে মাথার ওপর যেন মেঘের আনাগোনা। লোককথা অনুযায়ী, এই অঞ্চলে বানর একে অপরের হাত ধরে, লম্বা শিকল বানিয়ে নদী পারাপার করত। বানরের বাঁধ থেকে ‘বান্দরবান’ শব্দের উৎপত্তি।

বান্দরবান বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের চট্টগ্রাম বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল। এটি পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের অন্তর্গত। চট্টগ্রাম থেকে বান্দরবান জেলার দূরত্ব ৭৫ কিলোমিটার। এই অঞ্চলের অন্য দুটি জেলা হলো রাঙামাটি ও খাগড়াছড়ি। বান্দরবান জেলার নৈসর্গিক বৈচিত্র্যের জন্য বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে।

আমরা অনেকেই ঘুরতে যাবার পরিকল্পনা করি, কিন্তু অনেক সময় কোথা থেকে শুরু করবো, কিভাবে সাজাবো তা বুঝে উঠতে পারিনা। তাই ভ্রমণ ও প্রকৃতি পিপাসু মানুষের জন্য ‘হর্টিকালচার বেইজ রিসোর্ট ও ভিলা দ্যা কিউবি’ সাথে রেস্তোরাঁ ও পিকনিক স্পট রেডি করা হয়েছে।

চমৎকার প্রকৃতির সাথে বসবাস করার ও সুস্থ চিত্তবিনোদন এর পাশাপাশি পারিবারিক আনন্দ উপভোগ করার দারুন এক বেড়ানোর জায়গা হিসাবে তৈরী করা হয়েছে এ স্পটটি। আছে রাত্রি যাপনের সু-ব্যবস্থা। কেউ চাইলে তাবুতেও রাত্রি যাপন করার সুন্দর ও নান্দনিক ব্যবস্থা ছাড়াও আছে ক্যাম্প ফায়ার ও বার্বিকিউ করার অসাধারন পরিবেশ। রুম ভাড়া শুরু ২ হাজার ৯৯৯ টাকা থেকে। তবে রুম বুকিং এর ক্ষেত্রে এখন ৩০ শতাংশ ছাড় দেয়া হচ্ছে।

আর খাবার নিয়ে চিন্তার কোন কারণই নেই। নিজস্ব ব্যবস্থাপনা সাস্থ্যসম্মত খাবার পাওয়া যাবে স্পটেই । এখান থেকে পুরো বান্দরবানকে খুব কাছে থেকে দেখার ও প্রকৃতির খুব কাছাকাছি পৌছানো যাবে খুব সহজেই ।

এ স্থান সম্পর্কে বাংলাধারার সাথে কথা বলেছেন প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ম. গোলাম নেওয়াজ বাবুল। তিনি জানিয়েছেন,বান্দরবানের সুয়ালক এলাকায় (বান্দরবান বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন প্রকল্পের পাশে) আমার ‘হর্টিকালচার বেইজ রিসোর্ট ও পিকনিক স্পট’ রেডি করেছি। প্রকৃতির মাঝে মিলেমিশে একাকার হয়ে যেতে ইচ্ছে করে কোথাও বেড়াতে গেলে। প্রকৃতির প্রতি এই অকৃত্রিম ভালো লাগা অনেকেরই আছে। তাই আমরা সেভাবে গড়ে তুলেছি এ স্থানকে।

তিনি আরো জানান, ভ্রমনার্থীদের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সাস্থ্যসম্মত খাবার এবং নিরাপদে বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানে ঘুরে বেড়ানোর সুবিধা রয়েছে এখানে। চট্রগ্রাম এয়ারপোর্ট বা রেলস্টেশন থেকে পিকআপে ড্রপ পেকেজ সু-ব্যবস্থা করা যাবে। এছাড়াও বিভিন্ন কোম্পানির কর্পোরেট মিটিং,সেমিনার, ও ট্রেনিং’র জন্য আন্তর্জাতিক মানের সু ব্যবস্থাও আমরা করতে সক্ষম। স্কুল,কলেজ বা ইউনিভার্সিটির আনন্দ অনুষ্ঠানও করা যাবে। আপনাদের সবাইকে নিমন্ত্রণ।

বাংলাধারা/এফএস/টিএম/ইরা

ট্যাগ :