বাংলাদেশ, সোমবার, ২৫ মে ২০২০

মধ্যরাতে নির্জন ঝাউবাগানে ঘুরতে গিয়ে ছুরিকাহত ৩ যুবক

প্রকাশ: ২০২০-০৩-১৬ ১৩:০৫:২৬ || আপডেট: ২০২০-০৩-১৬ ১৩:০৫:২৮

কক্সবাজার প্রতিনিধি »

কক্সবাজার সৈকতের নির্জন ঝাউবাগানে রাতে হাটতে গিয়ে তিন যুবক ছিনতাইয়ের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। দলবদ্ধ ছিনতাইকারিরা তাদের ছুরিকাঘাত করে ছিনিয়ে নিয়েছে সর্বস্ব।

রোববার (১৫ মার্চ) দিনগত রাত সোয়া ১১টার দিকে সৈকতের শৈবাল পয়েন্টের জনশূন্য ঝাউবাগান এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ছুরিকাহত ৩ যুবককে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তারা নিজেদের পর্যটক বলে দাবি করেছেন।

আহতরা হলেন- ঢাকার মিরপুরের পল্লবী এলাকার গার্মেন্টস ব্যবসায়ী সালাউদ্দিন রাজ্জাক (৩১), মোশাররফ হোসেন জনি (৩২) ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাঈম শেখ (২৫)। তাদের মাঝে নাঈম শেখের অবস্থা গুরুতর।

আহত মোশাররফ জানান, রাতের খাবার খেয়ে আমরা তিনজন সৈকতে হাটতে হাটতে আক্রান্ত এলাকার ঝাউবাগানে চলে যায়। তখন রাত সোয়া ১১ টা হতে পারে। হঠাৎ ৫-৭ জনের একটি দল এসে আমাদের ঘিরে ফেলে। কিছু বুঝে উঠার আগে ছুরি দেখিয়ে সাথে থাকা নগদ প্রায় দেড় লাখ টাকা ও ৩টি মোবাইল ছিনিয়ে নেয়ার সময় ধস্তাধস্তি ও চিৎকার শুরু করলে ছিনতাইকারীরা ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়।

সৈকতের লাইফ গার্ড কর্মী সরওয়ার হোসেন বলেন, আমরা তিনজন ট্যুরিস্ট পুলিশের ভবনের পশ্চিম পাশে কিটকট চেয়ারে বসেছিলাম। রাত সাড়ে ১১টার দিকে দুই ব্যক্তি একজনকে পাঁজা কুলা করে নিয়ে আসছিলেন এবং সাহায্য চেয়ে ডাক দেন। জেলা প্রশাসনের বীচ কর্মীদের সুপারভাইজার খোরশেদসহ দৌড় গিয়ে দেখি তারা তিনজন রক্তাক্ত অবস্থায়। তাদের অবস্থা দেখে ট্যুরিস্ট পুলিশকে খবর দেয়া হলে তারা এসে আমাদের মাধ্যমে তাদের দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। হাসপাতালে গিয়ে জেলা প্রশাসনের পর্যটন সেলের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে খবর দিই আমরা।

আহতরা নিজেদের পর্যটক এবং সেখানে ঘুরতে গিয়েছিলেন বলে দাবি করেন। তবে এত রাতে তারা সেখানে কেন ঘুরতে যাবেন সেটা বোধে আসছে না।

এদিকে, নাম প্রকাশ না করার শর্তে লাইফ গার্ডের এক সুপারভাইজার বলেন, আহত পর্যটকদের এত রাতে শৈবাল পয়েন্টে যাওয়া সন্দেহজনক। রাতের সৈকতে লাবণী-সুগন্ধা-কলাতলী পয়েন্টে লোকসমাগম থাকে। আলোর পর্যাপ্ততা বেশি এখানে। আর সৈকতের কবিতা চত্বর ও শৈবাল পয়েন্টকে রাতে মাদক হস্তান্তর ও অপরাধকর্মের স্থান হিসেবে বেছে নেয়। এখানে মাদক হস্তান্তর করার কালে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে গোলাগুলিতে বেশ কয়েকজন অপরাধী ও মাদক কারবারি নিহত হন। রাতে ঘুরতে ঝাউবাগানের ভেতর দেড় লাখাধিক টাকাসহ যাওয়াও অনেক প্রশ্নের জন্ম দিচ্ছে।

আহতদের দেখতে সদর হাসপাতালে যান থানার অপারেশন অফিসার ইন্সপেক্টর মাসুম খান। তিনি জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। জড়িতদের আটকে অভিযান চলছে। যদিও আহতরা ঘুরতে সৈকতের ঐ পয়েন্টে গিয়েছিলেন দাবি করা হলেও, এত রাতে তারা এত টাকা নিয়ে কেন গিয়েছিলেন তা প্রশ্ন থেকে যায়। তারা একটু সুস্থ হলেই তা নিয়ে জানার চেষ্ট করা হবে।

বাংলাধারা/এফএস/টিএম/এএ

ট্যাগ :