বাংলাদেশ, বৃহস্পতিবার, ২ জুলাই ২০২০

মিষ্টভাষী ডা. সামিরুলের মৃত্যুতে শোকে স্তব্ধ চট্টলবাসী

প্রকাশ: ২০২০-০৬-২৪ ২০:৪৪:৪৭ || আপডেট: ২০২০-০৬-২৪ ২০:৪৪:৪৮

বাংলাধারা প্রতিবেদন »

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অর্থোপেডিক বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. সমিরুল ইসলাম ছিলেন একজন আন্তরিক ও মানবিক চিকিৎসক। করোনাভাইরাসের প্রকোপ দেখা দেওয়ার পরও তিনি চিকিৎসা বন্ধ করেননি। নিয়মিত হাসপাতালে গেছেন, রোগীদের সেবা দিয়েছেন এবং অস্ত্রোপচারও করেছিলেন। করোনাকালের সম্মুখপানের এ যোদ্ধা টানা ৩৩ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে করোনার কাছে হার মানলেন। চলে গেলেন না ফেরার দেশে। এই করোনাযোদ্ধার মৃত্যুতে চট্টগ্রামে নেমে আসে শোকের ছায়া। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ প্রকাশ করেন শোক।

মানবতার ডাক্তার সামিরুল ইসলাম কখনো বিনা চিকিৎসায় রোগী ফিরিয়ে দেন নি। ছিল না কোন লোভ-লালসা। ছাত্র-ছাত্রীদের পরম পিতার স্নেহে আগলে রাখতেন, সফলতা অর্জনে সাহস দিতেন। যদি কোন ছাত্র-ছাত্রী আবদার করে বলতেন, ‘স্যার, আমার একজন রোগী দেখতে হবে।’ তিনি বলতেন. ‘পাঠিয়ে দাও, দেখে দেব।’ এ কথাগুলো বলতে বলতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তাঁর স্নেহভাজন ছাত্র ডা. রায়হানুল ইসলাম।

মানবতার এ ডা. সমিরুল ইসলামের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়ার পর ফেসবুক জুড়ে বইছে শোকের মাতম। তারই কয়েকটি-   

শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল লিখেছেন, “গভীর শোকাহত” না ফেরার দেশে চলে গেলেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ডা. সমিরুল ইসলাম বাবু।….ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা ও শোক-সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাই।

চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি নাজিম উদ্দীন শ্যামল লিখেছেন, ‘আমার শৈশবের বন্ধু ডা. সামিরুল ইসলাম বাবু আর নেই। আমি বিশ্বাস করতে পারছি না, আমার বন্ধু আর নেই। সামিরুল একজন সৎ ও ছাত্রজীবনে মেধাবী ছাত্র ছিল। আল্লাহ তাকে জান্নাত দান করুন।’

দৈনিক যুগান্তরের সিনিয়র সাংবাদিক মিজানুল ইসলাম লিখেছেন, ‘না ফেরার দেশে আরো এক মানবিক চিকিৎসক সামিরুল ইসলাম বাবু।’

দৈনিক পূর্বদেশের জিএম (এডমিন) কামরুল ইসলাম হোসাইনি লিখেছেন, ‘বন্ধু ডা: সামিরুল আর নেই। ভাবতেই ভীষণ কষ্ট হচ্ছে। এমন বন্ধু কোথায় পাব।’

সৌরভ দাস লিখেছেন, ‘কোনভাবে মেনে নিতে পারছি না.. কোনভাবেই না..। উনার জায়গায় আমি মারা গেলে তো অনেক মানুষ সেবা পেত। কোন টাকা-পয়নার লোভ ছিল না এই মানুষটার মধ্যে।’

দীপ্ত টেলিভিশনের সাংবাদিক লতিফা আনসারী রুনা লিখেছেন, ‘গভীরভাবে শোকাহত। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ডা. সমিরুল ইসলাম বাবু ভাই মারা গেছেন।’

ব্যাংকার জিয়াউল হক জিল্লু লিখেছেন, এমন মানব দরদী আর মিষ্টভাষী ডাক্তার খুব বেশি দেখি নি। ডা. সামিরুল ইসলামকে আল্লাহ জান্নাতবাসী করুন।’

ডা. মো. আবদুর রব লিখেছেন, ডা. সমিরুল ইসলাম ভাইয়ের মৃত্যু মেনে নিতে অনেক কষ্ট হচ্ছে। এত এত যুদ্ধ করেও মহান আল্লাহ তায়ালায় ইচ্ছায় উনি আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন। একটাই দোয়া করি, আল্লাহ যেন উনাকে বেহেশত নসীব করেন।

চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের সচিব আলেক্স আলীম লিখেছেন, এই ফ্রন্টলাইনারকে আর বাঁচানো গেলো না! অসময়ে চলে গেল চট্টগ্রামের মানুষের অকৃত্রিম বন্ধু বিশিষ্ট অর্থোপেডিক সার্জন ডা. সমিরুল ইসলাম বাবু। আর কত মৃত্যুতে মিছিল থামবে?

উল্লেখ্য, ডা. সামিরুলের প্রথম নামাজে জানাজা বিকাল ৪টায় চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতালে পুরাতন ভবনে হবে অনুষ্ঠিত হয়। তাঁর জানাজার নামাজে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

বাংলাধারা/এফএস/টিএম

ট্যাগ :