বাংলাদেশ, বুধবার, ৫ আগস্ট ২০২০

স্বল্পসুদে ঋণ সুবিধা না থাকায় মধ্য আয়ের মানুষ ফ্ল্যাট কিনতে পারেন না : মোহাম্মদ সাদেক

প্রকাশ: ২০২০-০২-০৬ ১৩:০৭:০৮ || আপডেট: ২০২০-০২-০৬ ১৩:১৪:১৩

‘স্বপ্নীল আবাসন সবুজ দেশ, লাল সবুজের বাংলাদেশ’ স্লোগানে নগরের হোটেল রেডিসন ব্লু’তে বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) থেকে চার দিনব্যাপী রিহ্যাব চট্টগ্রাম ফেয়ার-২০২০। এবারের ফেয়ারে ৫৫টি প্রতিষ্ঠানের ৭৩টি স্টল অংশ নিয়েছে। এবারের এই আয়োজিত মেলা নিয়ে বিস্তারিত কথা হয়েছে আবাসন খাতের ব্যবসায়ীদের সংগঠন রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (রিহ্যাব) সদস্য মোহাম্মদ সাদেকের সাথে।

তিনি সাকুরা হোল্ডিংস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। একই সাথে তিনি ‘রমনা কার’ এর সত্ত্বাধিকারী। এছাড়াও মিডওয়ে মার্চেন্টস লিমিটেডের (সিএন্ডএফ এজেন্ট) ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন।

চট্টগ্রামে রিহ্যাব মেলা এবং আবাসন খাতের বর্তমান অবস্থা, চ্যালেঞ্জ ও ভবিষ্যৎ করণীয় নিয়ে বাংলাধারা’র সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলাধারা ডটকমের প্রধান প্রতিবেদক তারেক মাহমুদ।

বাংলাধারা : প্রতি বছর এ সময় মেলার আয়োজন করে রিহ্যাব। মেলায় আবাসন খাতে কতটুকু ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে?

মোহাম্মদ সাদেক : মেলা একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়ার অংশ। প্রতি বছর এ মেলার জন্য অনেকে উন্মুখ হয়ে থাকেন। এ মেলার মাধ্যমে গ্রাহকরা শুধু বিভিন্ন ফ্ল্যাটের খোঁজ পান না, গৃহঋণসহ অন্য সুবিধার কথাও জানতে পারেন। অন্যদিকে একসঙ্গে আবাসন খাতের ছোট-বড় সব প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প সম্পর্কেও জানতে পারেন। পরে তারা সিদ্ধান্ত নিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। মেলা শেষে আবাসন ব্যবসায়ীরা এর সুফল পান।

বাংলাধারা : আবাসন খাতের বর্তমান অবস্থা কী?

মোহাম্মদ সাদেক : অন্য যে কোনো সময়ের চেয়ে আবাসন খাত কিছুটা ভালো অবস্থায় রয়েছে। ক্রেতাদের আস্থার সংকট অনেকটা কেটেছে। আশা করছি সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকের সহজ শর্তে ঋণ সুবিধা পেলে সামনে এ খাত আরো ভালো অবস্থানে যাবে।

বাংলাধারা : চট্টগ্রামে ফ্ল্যাটের দাম মধ্যবিত্তের সাধ্যের বাইরে। তাদের জন্য নতুন উদ্যোগ আছে কি?

মোহাম্মদ সাদেক : মধ্যবিত্তের জন্য স্বল্পমূল্যে ফ্ল্যাটের ব্যবস্থা অন্যতম একটি দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। কিন্তু এটি একার পক্ষে সম্ভব নয়। সংশ্লিষ্ট সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। যতটুকু সম্ভব রিহ্যাব তাদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে অনেকে কম দামে ফ্ল্যাট বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছে।

বাংলাধারা : এ খাতে মন্দা কাটাতে সহজ সুদে ঋণ জরুরি বলে মনে করেন গ্রাহকরা। এ বিষয়ে আপনাদের কোনো উদ্যোগ আছে কি?

মোহাম্মদ সাদেক : সব ব্যাংক থেকে স্বল্পসুদে ঋণের সুবিধা মেলে না। যার কারণে মধ্য আয়ের মানুষ ফ্ল্যাট কিনতে পারেন না। এজন্য স্বল্পসুদে দীর্ঘমেয়াদে গৃহঋণ দরকার। এখন কিছু বেসরকারি ব্যাংক এগিয়ে আসছে। আমরা সরকারকে বারবার জানিয়েছি ব্যাংক ঋণের ব্যবস্থা করতে। বিশেষ করে সরকারি ব্যাংক এগিয়ে আসলে গ্রাহকদের জন্য বিষয়টি আরো সহজ হবে।

বাংলাধারা : আগামী বাজেটে বিশেষ তহবিলের কথা বলছেন আপনারা। এতে ক্রেতা নাকি বিক্রেতারা বেশি লাভবান হবেন?

মোহাম্মদ সাদেক : রিহ্যাব সরকারের কাছে ২০ হাজার কোটি টাকার বিশেষ তহবিল চেয়েছে। এখান থেকে সাধারণ ক্রেতারা স্বল্পসুদে দীর্ঘমেয়াদে ঋণ সুবিধা পাবেন। সেখান থেকে ক্রেতারা সুবিধা পেলে ব্যবসায়ীরাও সুফল পাবেন। আমরা তহবিল চাই, সবার সুবিধার্থে, সবার জন্য আবাসন ব্যবস্থা করতে চাই।

বাংলাধারা : এখাতে অপ্রদর্শিত অর্থের (কালো টাকা) বিনিয়োগের কথা বলেন ব্যবসায়ীরা। এ অর্থের বিনিয়োগ কি দুর্নীতিকে সমর্থন করে না?

মোহাম্মদ সাদেক : আমরা কখনই কালো টাকার পক্ষে কথা বলি না, এটাকে সমর্থনও করি না। আমরা চাই বৈধ পথে অর্জিত অপ্রদর্শিত টাকার বিনিয়োগ। কালো টাকার পক্ষে আমাদের কারো সমর্থন নেই। দেশের মধ্যে যদি অপ্রদর্শিত টাকার বিনিয়োগ না হয় তাহলে সেটি সেকেন্ড হোমে চলে যাবে। দেশের বাইরে পাচার হবে।

বাংলাধারা : অভিযোগ রয়েছে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের অনেকেই প্রতারিত হন। প্রতারিত হবেন না- এর নিশ্চয়তা কে দেবে?

মোহাম্মদ সাদেক : প্রবাসীরা বিনিয়োগ করলে প্রতারিত হবেন না। বিনিয়োগের পর প্লট বা অ্যাপার্টমেন্ট না পেয়ে থাকলে রিহ্যাবের মেডিয়েশন সেলে অভিযোগ করলে সমাধান পাবেন। তবে রিহ্যাব সদস্যদের বাইরে কিছু হলে এর দায়ভার রিহ্যাব নেবে না। আমরা প্রবাসী ভাইদের আহ্বান জানাবো ভালো কোম্পানির কাছে কষ্টার্জিত টাকা বিনিয়োগ করুন। এক্ষেত্রে অবশ্যই রিহ্যাব সদস্যভুক্ত কোম্পানি হতে হবে।

বাংলাধারা : এ খাতে বর্তমানে গ্যাস সংযোগের সমস্যা রয়েছে। এ বিষয়ে আপনার মতামত কী?

মোহাম্মদ সাদেক : আবাসনে গ্যাস সংযোগ বড় সমস্যা নয়। বিশ্বের অন্য দেশেও সিলিন্ডারের গ্যাস ব্যবহৃত হচ্ছে। যেহেতু গ্যাসের মজুদ ফুরিয়ে আসছে তাই আমরাও বিল্ডিংয়ের নিচে সিলিন্ডারের ব্যবস্থা করছি। এ ধরনের কোনো সমস্যাই এ খাতকে বাধাগ্রস্ত করতে পারবে না।

বাংলাধারা/এফএস/টিএম

ট্যাগ :

close
bangladhara ads