বাংলাদেশ, শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

অভিযোগের খাতায় চট্টগ্রামের ডজনখানেক কাউন্সিলর

প্রকাশ: ২০২০-০২-১৯ ১৫:১৭:৫৭ || আপডেট: ২০২০-০২-১৯ ১৫:৩২:১২

বাংলাধারা প্রতিবেদন »

আসন্ন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন বঞ্চিত হতে পারেন কমপক্ষে এক ডজন কাউন্সিলর। গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সমর্থন নিয়ে জয়ী হয়ে আসা এসব কাউন্সিলরের অনেকের বিরুদ্ধে দায়িত্বের মেয়াদকালে চাঁদাবাজি, জমিদখল ও হত্যা মামলাসহ নানা অপরাধ ও অনিয়মের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ শোনা গেছে বছরজুড়ে। অনেকে আবার রাজনৈতিক বিভিন্ন মেরুকরণে বাতিলের খাতায় পড়ছেন বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে। আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল একাধিক নির্ভরযোগ্য নেতার সাথে আলাপ করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

নগর নেতারা বলছেন, বিতর্কিতদের সমর্থন না দিতে দলকে অবহিত করা হয়েছে।

চাঁদাবাজি, জমিদখল ও হত্যা মামলাসহ নানা অপরাধ ও অনিয়মের অভিযোগে অভিযুক্ত এসব কাউন্সিলররা হলেন, দক্ষিণ পাহাড়তলী ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তওফিক আহমেদ। দু’বছর আগে তার লাইসেন্স করা অস্ত্রসহ আটক হয় দু’জন। মাদক সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে গোয়েন্দা সংস্থার তালিকায় আছেন আলকরণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর তারেক সোলায়মান সেলিম ও পাঠানটুলির আবদুল কাদের। আরেক কাউন্সিলর গোলাম মোহাম্মদ জোয়ারের বিরুদ্ধে জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষের প্রকৌশলীকে মারধর, চাঁদাবাজি, জমিদখল ও হত্যামামলাসহ আছে বিভিন্ন মামলা।

এরকম নানা অভিযোগ থাকা এক ডজন কাউন্সিলর নিয়ে এবার সিটি নির্বাচনে চলছে নানা আলোচনা। তাদের কেউ কেউ আছেন দলীয় সমর্থন না পাওয়ার শঙ্কায়।

নগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ বলেন, প্রশাসনিক প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে এ মনোনয়ন দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আমরা আশা করি যারা বিতর্কিত তারা কোনভাবে যাতে মনোনয়ন না পায়।

নগরীর ৪১ টি ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে স্থানীয় সংসদ সদস্যদের কাছ থেকে তালিকা নেয়ার পর চলছে যাচাই-বাছাই।

বর্তমান ওইসব কাউন্সিলরদের মধ্য থেকে বাদ পড়তে পারেন- তৌফিক আহমদ চৌধুরী, কফিল উদ্দিন খান, সাইফুদ্দিন খালেদ, মোবারক আলী, জহুরুল আলম জসিম, মো. হোসেন হিরণ, সাবের হোসেন সওদাগর, আবুল ফজল কবির আহমেদ মানিক, গোলাম মোহাম্মদ জোবায়ের, এসএম এরশাদ উল্লাহ, এইচ এম সোহেল, আব্দুল কাদের, নুরুল হক, জিয়াউল হক সুমন, সৈয়দা কাশপিয়া নাহরিন, ফেরদৌসি আকবরসহ বেশ কয়েকজন। কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন খালেদের বিরুদ্ধে সাবেক মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি’র নামফলক সরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ এনেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সর্বশেষ নির্বাচনে ৪১টি সাধারণ ওয়ার্ডের মধ্যে ৩৫টিতে এবং সংরক্ষিত ১৪টির মধ্যে ১১টিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা জয়ী হন। এবার অনেক বর্তমান কাউন্সিলরকে বাদ দেওয়ার গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

সব কিছু বিবেচনায় রেখে আজ বিকাল পাঁচটায় বৈঠকে বসছেন স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ড। আগামিকাল বৃহস্পতিবার তালিকা প্রকাশ করা হবে ৪১ টি ওয়ার্ড ও ১৪ টি সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থীদের নাম।

বাংলাধারা/এফএস/টিএম

ট্যাগ :

close