বাংলাদেশ, ২রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

‘করোনা’ নিয়ে শৈবাল দাশ সুমনের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ, বাকী কাউন্সিলররা ব্যস্ত নির্বাচন নিয়ে

প্রকাশ:২রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

বাংলাধারা প্রতিবেদন »

চীনের ‘করোনা’ ভাইরাসের (কোভিড-১৯) আতঙ্ক বিশ্বজুড়ে। সম্প্রতি বাংলাদেশে ধরা পড়েছে করোনা ভাইরাস। বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস রয়েছে এ খবর চাউর হওয়ার পর জনমনে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে ভাবনার শেষ নেই বাংলাদেশেও।

সরকারের তরফে অবশ্য বলা হয়েছে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয় ‘করোনা’ ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। হাসপাতালে স্থাপিত হয়েছে বিশেষ আইসোলেশন ইউনিট। এছাড়া স্থলবন্দর, সমুদ্রবন্দর থেকে শুরু করে বিমানবন্দরে বসানো হয়েছে ‘করোনা’ ভাইরাস সনাক্তকারী স্ক্যানার মেশিন। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে নগরবাসীকে সচেতনমূলক পরামর্শও দিচ্ছেন সরকার/বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও সিটি কর্পোরেশন।

উক্ত ধারাবাহিকতায়, ২১নং জামালখান ওয়ার্ড কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন ‘করোনা’ ভাইরাস প্রতিরোধে। নিজ অর্থায়নে তৈরি মাস্ক নিয়ে ছুটছেন জামালখান ওয়ার্ড বাসিন্দাদের দ্বারে দ্বারে। স্কুল,কলেজ শিক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণ করছেন এই মাস্ক, সচেতনতা তৈরি করছেন অভিভাবকদের মাঝেও।

কিন্তু কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমনের মতো এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগ বাকী ৪০ টি ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের মধ্যে দেখা যায়নি। বাকী কাউন্সিলররা ব্যাস্ত নির্বাচনী কাজ নিয়ে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শৈবাল দাশ সুমন গণমাধ্যমকে বলেন, করোনা ভাইরাসের প্রতিরোধে এখন পর্যন্ত কোনো প্রতিষেধক আবিষ্কার না হওয়ায় সকলকে মাস্ক ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকেরা। যেহেতু ভাইরাসটি ছোঁয়াছে তাই সকলকে সচেতন থাকতে হবে। জামালখান ওয়ার্ডের প্রতিটি ঘরে ও স্কুল ছাত্র-ছাত্রীর মাঝে জনসচেতনতা বৃদ্ধি এবং মাস্ক ব্যবহারে আগ্রহী করার জন্য এ কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে যা একমাস ব্যাপী চলবে।

এ সচেতনতার কার্যক্রমের অংশ হিসেবে জামালখান ওয়ার্ডে প্রতিটি ঘরে ঘরে ৫টি করে এবং বিভিন্ন স্কুলসহ মোট ২ লাখ ৫০ হাজার মাস্ক বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগ ছাড়াও শৈবাল দাশ সুমন প্রশংসিত হয়েছেন জামালখান ওয়ার্ডকে নান্দনিক ও হেলদি ওয়ার্ড হিসেবে উপহার দেয়ার জন্য।

বাংলাধারা/এফএস/টিএম/ইরা

ট্যাগ :

close