বাংলাদেশ, বুধবার, ৫ আগস্ট ২০২০

মাছ, মাংস ও সবজির দামে অস্বস্তি

প্রকাশ: ২০২০-০৬-১৯ ১৩:১৮:০৯ || আপডেট: ২০২০-০৬-১৯ ১৩:১৮:১২

বাংলাধারা প্রতিবেদন »  

সাগরে মাছ ধরা বন্ধ রয়েছে। তাই বাজারে সামুদ্রিক মাছের সরবরাহও কম। সপ্তাহের ব্যবধানে কমেনি মাছ, মাংস ও সবজির দাম। এদিকে দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে বিক্রেতারা বৈরি আবহাওয়ার অজুহাত দেখাচ্ছেন।

শুক্রবার (১৯ জুন) নগরীর রিয়াজ উদ্দিন বাজার ঘুরে দেখা যায়, আকারভেদে প্রতিকেজি টমেটো ৪০ টাকা, পটল বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা, ঝিঙা-চিচিঙা-ধন্দুল ৩০-৪০, কাকরোল ৪০-৫০, করলা ও উস্তি ৬০-৭০, কচুর ছড়া ৫০-৬০, পেঁপে ৪০-৬০, ঢেড়স ৩০-৪০, কচুর লতি ৫০-৬০, বেগুন ৪০-৮০, কাঁচা মরিচ ৫০-৬০, মিষ্টি কুমড়া ২৫-৩০, আলু ৩০ টাকা কেজিদরে।

ইলিশ মাছ ৪শ-৬শ টাকা, চিংড়ি সাড়ে ৬শ টাকা, কোরাল সাড়ে ৭শ টাকা, লইট্যা ১৫০-১৬০ টাকা, বাটা সাড়ে ৩শ টাকা, তেলাপিয়া ১৫০ টাকা, রুই ১৫০ টাকা, কাতাল ১৮০-২শ টাকা, পাবদা সাড়ে ৪শ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। তাছাড়া প্রতিকেজি কাঁচকি মাছ বিক্রি হচ্ছে ৩৫০-৪০০ টাকা কেজিদরে, মলা ৩৮০-৪০০ টাকা, ছোট পুঁটি (তাজা) ৫০০-৫৫০ টাকা, ছোট পুঁটি ২৮০-৩৫০ টাকা, টেংরা মাছ (তাজা) প্রতিকেজি ৬৫০-৭৫০ টাকা, দেশি টেংরা ৪৫০-৫৫০ টাকা কেজি দরে।

এছাড়া ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৫০-১৬০ টাকা, লেয়ার ২৫০ টাকা, কর্ক ২৪০-২৫০ টাকা, গরুর মাংস সাড়ে ৭শ টাকা ও খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৮শ টাকা কেজি দরে।

মাহবুব নামে এক ক্রেতা বাংলাধারাকে বলেন, এখন বাজারে সবজির কোনও ঘাটতি নেই, কিন্তু দাম বেশি। গত সপ্তাহে দেখলাম বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে আজও একই দামে বিক্রি করা হচ্ছে। অথচ সিজন না এরকম অনেক সবজি বাজারে আছে। বেশি মুনাফার আশায় ব্যবসায়ীরা ইচ্ছে মতো দাম রাখছেন।

বাংলাধারা/এফএস/টিএম

ট্যাগ :

close
bangladhara ads