বাংলাদেশ, ২রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সাফায়েতুল ইসলাম এর দু’টি কবিতা

প্রকাশ:২রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সাফায়েতুল ইসলাম  »

১.

আত্মভোলা


কতোগুলো পদচিহ্ন বেঁকে গেছে, অতীব সুন্দর সময়ের পৃষ্ঠাঙ্কনে, যেন ঝলমলে রুপালী রোদ্দুরের মতো। ওহে এথ্যলেটিকস, কৈবর্ত বিদ্রোহী, গ্রহের অপদ্রষ্টা, তোমার মৃত্যু কড়া নেড়েছে এক দোদুল্যমান অভিসম্ভারে, কোথায় যেন নিঃশেষের হুইসেল বেজে গেছে, শুনতে পাও! সহস্র ঝর্ণা জলপ্রপাতের গর্জন কিংবা লক্ষ বছরের ক্রমবর্ধমান ইতিহাসের হুঙ্কার।

এতএব কল্পনা করুণ, সময় এসেছে হাজার বছরের ক্লান্তির ভার তুলে নেওয়ার, বদলে যাচ্ছে বেঁচে থাকার মতো মাদকতার তীব্রতা, স্থবিরতা নয় কিংবা নয় কোন ব্যক্তিস্বাতন্ত্র্য, এক অদ্ভুত অপ্রস্তুত আলেয়া ঢুকে যাচ্ছে, সমস্ত বোধ ক্ষমতার ঊর্ধ্বে। তুলকালাম হয়ে যাচ্ছে চারিদিক, অপরিপক্ব আদম সন্তান চোখ মেলে তাকাবে, জানান দিবে আত্মভোলা নানাবিধ পেরাডক্সের ফাঁদ, তারপর নিজের মনে ডুব দিবে, আরও জানবে বোধশক্তির আরেক পরম সত্য ছিল কল্পনার শক্তি।

২.

আত্মমগ্নতা


বিবিধ সম্ভাষণের পর শ্বাপদের মতো নতশির করি, অশ্বত্ব সন্ধ্যার দিকে, ঠিক সূর্যাস্তের দিকে। অতঃপর আত্মমগ্নতাকে উপেক্ষা করে ছুটে যেতে থাকি, দুরন্ত ষাঁড়ের মতো, ধেয়ে আসা সব অজানা বোধের দিকে।

ক্রমশ হিংস্রের মতো আস্ফালিত হতে থাকে ক্রোধের ভেতর কার ক্রোধ, তাবৎ বিশৃঙ্খলা যেন উগ্লে দিতে পারলেই প্রশান্তি, যেন প্রশমিত নদীর মতো বয়ে যাওয়া। এই ‘শেষ’ বলে কিছু নেই জেনেছি বলেই হয়তো কোন কিছু ধরে না আবার ছেড়েও যায় না, তাইতো সব তাম্রলিপির মত রৌদ্রালোকে উদ্ভাসিত হতে থাকে, ইচ্ছে পাখিদের মতো ডানা মেলে রগচটা দুপুরে।

আরও জেনেছি খুঁজের সমর্থক শব্দ সত্য, জানার আকাঙ্ক্ষায় অজানার পিছু ছুটতে থাকা, আদ্যতে অলৌকিক কিছুর সন্ধানে মত্ত হওয়া। আত্মতুষ্টির সমস্ত মুহূর্তরা জানান দিবে জীবন কতোটা সৌকর্য আলোকবর্তিকার মতো উজ্জ্বল, সমস্ত গতিবিধি কতোটা বিসৃত। বোধলব্ধ বোধ জানান দেবে, কোন কিছুই ফেলনা নয় আবার কোন কিছুই গুরুত্ব নয়।

বাংলাধারা/এফএস/এআর

ট্যাগ :

close