বাংলাদেশ, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মাস্ক ব্যবহারে প্রশাসনের কঠোর নির্দেশনা, বেড়েছে চাহিদা ও দাম

প্রকাশ:৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

ওমর শরীফ  »

করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় দফা বিস্তার প্রতিরোধে এরই মধ্যে আগাম সতর্ক বার্তা দিয়েছে প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সকল প্রতিষ্ঠান। এরপর পরই সরকারের বিভিন্ন দপ্তরসহ মাঠ প্রশাসনের নানাস্তরে মাস্ক ব্যবহারে কঠোর হতে নির্দেশনা দেয় সংশ্লিষ্ট দপ্তর। তাই মাস্ক ব্যবহারকারীর সংখ্যা আগের তুলনায় বেড়ে গেছে, ফলে বৃদ্ধি পেয়েছে মাস্কের চাহিদা। পাশাপাশি দাম বেড়েছে দ্বিগুণ ।

গত এক সপ্তাহ আগেও সার্জিক্যাল মাস্ক (একবার ব্যবহারযোগ্য) বক্স প্রতি দাম ছিল মাত্র ৫০ টাকা। কিন্তু সেটি এখন খুচরা বাজারেই ১০০ থেকে ১৫০ টাকায়। ৫ টাকার মাস্ক অনেক দোকানি ১০ থেকে ১৫ টাকায় বিক্রি করছে।

নগরীর রিয়াজ উদ্দিন বাজার, হাজারী লেন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এলাকায় অবস্থিত বিভিন্ন দোকানির সাথে কথা বলে জানা যায়, মানুষের চাহিদা বেশি একবার ব্যবহার যোগ্য মাস্কের প্রতি।

মাস্ক ক্রয় করতে আসা এক নারী বাংলাধারাকে বলেন, ‘দিনদিন করোনায় আক্রান্ত রোগী বাড়ছে, সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকেই কিছুদিন ধরে শীতে সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার আশংকা প্রকাশ করা হয়েছে। তাই পরিবারের জন্য কিছু মাস্ক কিনতে এসেছি। তবে করোনার শুরুতে দাম বাড়তি থাকলেও মাঝে সরবরাহ বেশি থাকায় দাম কমেছিলো, কিন্তু এখন আবার দাম বাড়তি। চাহিদা বুঝে অনেক দোকানিই দাম বাড়িয়ে দিয়েছে যা অনৈতিক।’

বিক্রেতারা বলছেন, ‘মাস্ক ব্যবহারে সরকারের পক্ষ থেকে কঠোর অবস্থান, সেই সাথে করোনার সংক্রমণ উর্ধ্বমূখীতে থাকায় চাহিদা এবং দাম দুটোই বেড়েছে। তার উপর কারখানায় উৎপাদন কম, উৎপাদন বেড়ে গেলে দাম হয়তবা কমে যাবে।’

বাজারের একাধিক দোকানির সাথে কথা বলে জানা যায় দামের সাথে বেড়েছে চাহিদাও। যেখানে একটি পাইকারি দোকানি গেল মাসে পাঁচশ’ বক্স বিক্রি করতেন, সেখানে বর্তমানে বিক্রি করছেন ৬-৮ হাজার বক্স পর্যন্ত। উৎপাদনের তুলনায় চাহিদা বেড়ে চলেছে।

মাস্কের দাম বৃদ্ধি নিয়ে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি এসএম নাজের হোসাইন বলেন, ‘ক্যাব এবং জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। এছাড়া এ থেকে পরিত্রাণের জন্য ব্যবসায়ীদের নীতি নৈতিকতার পরিবর্তন প্রয়োজন।’

বাংলাধারা/এফএস/ওএস/এআর

ট্যাগ :

close