বাংলাদেশ, ৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আনোয়ারায় অর্গানিক শুটকিতে স্বপ্ন দেখছে তিন যুবক

প্রকাশ:৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

খালেদ মনছুর  »

আনোয়ারা উপকূলীয় এলাকা রায়পুর গ্রামের তিন যুবক জয়নাল আবেদীন, মো. তানভীর, মো.সুমন। পড়ালেখা ও পারিবারিক সুবাদে থাকেন চট্টগ্রাম শহরে। তিনজনই বিভিন্ন বিষয়ে অনার্সে পড়ালেখা করছেন। পড়ালেখার পাশাপাশি মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে কিছু একটা করার। উপকূলীয় এলাকায় বাড়ি হওয়ায় শুটকির ব্যবসাটা মাথায় আসে সবার আগে। কিন্তু সাধারণভাবে যেভাবে শুটকি শুকায় তা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হওয়ায় বিকল্প চিন্তা শুরু করেন তারা।

এর মধ্যে করোনা শুরু হওয়ায় অবসরে স্বাস্থ্যকর শুটকি নিয়ে চিন্তাবাবনা করতে থাকেন। ইউটিউব ও বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা থেকে অর্গানিক শুটকির বিষয়ে ধারনা নেন। পরে বিষয়টি নিয়ে উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা রশিদুল হকের সাথে আলোচনা করলে তিনি তাদেরকে উৎসাহিত করেন এবং সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন। এরপর তারা নেমে পড়েন অর্গানিক শুটকির কার্যক্রমে। বারশত কারিবাড়ী এলাকায় স্থাপন করেন ‘টেকনিক্যাল ফিস ড্রায়ার’।

গত ৩ ফেব্রুয়ারি উপজেলা মৎস্য অফিসার মো. রশিদুল হক এটি উদ্বোধন করেন।

উদ্যোক্তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, সাধারণত খোলা জায়গায় যেভাবে শুটকি তৈরি করে তাতে ধুলাবালি থাকে। পোকায় না ধরার জন্য দেয়া হয় ক্ষতিকারক বিষ। যা শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। এর বিকল্প হিসেবে টেকনিক্যাল ফিস ড্রায়ারে ঢুকবেনা কোনো ধুলোবালি। কোনো ধরণের কেমিক্যাল ছাড়াই সম্পূর্ণ স্বাস্থ্যসম্মতভাবে এই শুটকি উৎপাদন করা হয়।

উদ্যোক্তারা জানান, একটি টেকনিক্যাল ফিস ড্রায়ারে একবারে প্রায় ৮ শত কেজি শুটকি ধারণ ক্ষমতা রয়েছে। শুটকি একবার ঢুকালে ১০ দিন পর্যন্ত লাগে। তবে উদ্যোক্তাদের চিন্তার কারণ অর্গানিক শুটকির বাজারজাত নিয়ে। এখনো পাইকারী বাজারে অর্গানিক শুটকির তেমন সাড়া পড়েনি। স্বাস্থ্যসম্মত হওয়ায় বাজারদরও একটু বেশি। তবে উদ্যোক্তারা হাল ছাড়তে নারাজ। তারা অনলাইন শপিংকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন।

এদিকে সাম্প্রতিক একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। যেখানে চট্টগ্রামে ক্যানসারের হটস্পট হিসেবে দক্ষিণ চট্টগ্রামকে চিহ্নিত করেছে। এর প্রধান কারণ হিসেবে এ অঞ্চলের মানুষের শুটকি খাওয়ার প্রবণতাকে দায়ী করেছেন। কারণ শুটকিতে মেশানো হয় মানুষের শরীরের ক্ষতিকারক বিষ। এজন্য গবেষকরা এখন বিষমুক্ত শুটকির উপর গুরুত্বারোপ করছেন।

উদ্যোক্তা জয়নাল আবেদীন বলেন, সাধারণভাবে যে শুটকি উৎপাদন করা হয় তা মানুষের শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। অন্যদিকে অর্গানিক শুটকি যেমনি স্বাস্থ্যকর তেমনি সুস্বাদুু। স্বাস্থ্য সচেতন মানুষ মাত্রই অর্গানিক শুটকি পছন্দ করেন। আমরা আশাবাদী, প্রতিবন্ধকতা থাকার পরও আমরা আমাদের লক্ষ্যে এগিয়ে যেতে পারব।

উপজেলা মৎস্য অফিসার মো. রশিদুল হক বলেন, আমি তিন যুবকের অর্গানিক শুটকি উৎপাদনের কার্যক্রম হাতে নেয়ায় অত্যন্ত আনন্দিত হয়েছি। আমি নিজে কার্যক্রম পরিদর্শণ করেছি এবং প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দিয়েছি। আশাকরি পরিকল্পনা মাফিক এগুলে উদ্যোক্তারা সফল হবেই।

বাংলাধারা/এফএস/এআর

ট্যাগ :

close