বাংলাদেশ, ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিশুর ভুল চিকিৎসা, সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিলেন রাঙামাটির জেলা প্রশাসক

প্রকাশ:২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বাংলাধারা প্রতিবেদন  »

অগ্নিদগ্ধ শিশু কাহিনী চাকমার (০৮) চিকিৎসা সহায়তায় পাশে দাঁড়িয়েছেন রাঙামাটির জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ। সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারী) সকালে সহায়তা বাবদ ২৫ হাজার টাকার চেক তুলে দেন বাঘাইছড়ি উপজেলার স্থানীয় সংবাদ কর্মী মো. ওমর ফারুক সুমন এর হাতে।

কাহিনী চাকমা আটারকছড়া ইউনিয়নের উল্টাছড়ি গ্রামের হতদরিদ্র জুম চাষী লিটন চাকমার মেয়ে। সে গত ১৫ দিন পূর্বে শীত নিবারনের চেষ্টায় আগুন পোহাতে গিয়ে অগ্নিদগ্ধ হয়ে স্থানীয় গ্রাম্য হাতুড়ে বৈদ্যের কাছে চিকিৎসা নেয়। কিন্তু অপচিকিৎসার শিকার হয়ে তার অবস্থার অবনতি হয়।

জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ বলেন, আমি ২১ তারিখ সকালে সাংবাদিক ওমর ফারুক সুমনের ফেইসবুক পোস্টের মাধ্যমে শিশু কাহিনীর চাকমার অগ্নিদগ্ধের ঘটনাটি জানতে পারি এবং তাৎক্ষানিক সুমনের সাথে যোগাযোগ করে সহায়তার বিষয়টি নিশ্চিত করি। আজ শিশুটির চিকিৎসার জন্য ২৫ হাজার টাকার চেক হস্তান্তর করি।

এ সময় জেলা প্রশাসক অগ্নিদগ্ধ শিশু কাহিনী চাকমার চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করায় বাঘাইছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সুদর্শন চাকমা ও ওয়ার্ল্ড বুড্ডিস্ট এসোসিয়েশনকে ধন্যবাদ জানান এবং আগামী দিনেও শিশু কাহিনী চাকমার চিকিৎসায় পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন।

উল্লেখ্য, কাহিনী চাকমাকে চিকিৎসার জন্য বাঘাইছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে বাঘাইছড়ির সাংবাদিক ওমর ফারুক সুমন কাহিনী চাকমার অসহায়ত্বের কথা তুলে ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করেন। এরপর শিশুটির চিকিৎসা সহায়তায় এগিয়ে আসেন বাঘাইছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সুদর্সশন চাকমা, ওয়ার্ল্ড বুড্ডিস্ট এসোসিয়েশনসহ স্থানীয় বেশ কয়েকজন সহৃদয়বান ব্যক্তি।

পরে সকলের প্রচেষ্টায় কাহিনী চাকমাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়। সেখানে দুইদিন চিকিৎসায় অবস্থার পরিবর্তন না হওয়ায় চিকিৎসক তাকে ঢাকায় প্রেরণের পরামর্শ দেন বলে নিশ্চিত করেন কাহিনী চাকমার বাবা লিটন চাকমা। এতে মোটা অংকের অর্থের প্রয়োজন দেখা দেওয়ায় চিন্তিত হয়ে পরেন হতদরিদ্র জুম চাষী লিটন চাকমা এবং চেয়েছেন সকলের সহায়তা।

সোমবার চেক প্রদান অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, রাঙামাটি সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাতেমা তুজ জোহরা ও জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো. আলমগীর মানিক।

বাংলাধারা/এফএস/এআর

ট্যাগ :

close