বাংলাদেশ, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মহেশখালীর হোয়ানকের ফলাফল পাল্টে দিয়েছে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা!

প্রকাশ: বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১

জেলা প্রতিনিধ, কক্সবাজার »

কক্সবাজারের মহেশখালীর হোয়ানক ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জনগণের রায়কে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে পাল্টে দিয়েছে উপজেলা রিটানিং অফিসার, এমনটি দাবী করেছেন ওই ইউপি’র চেয়ারম্যান প্রার্থী ও মহেশখালি উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক ওয়াজেদ আলী মুরাদ।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে কক্সবাজার প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এমন দাবি করে বলে, গভীর রাতে তার জয়কে ষড়যন্ত্র করে ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। এ জন্য তিনি আইনী লড়াই চালিয়ে যাওয়ার ঘোষনা দিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ওয়াজেদ আলী মুরাদ বলেন, গত ২০ সেপ্টেম্বর হোয়ানক ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ‘মোটর সাইকেল’ প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আমি সহ মোট ১১ জন প্রার্থী অংশগ্রহণ করি। সংশ্লিষ্ট প্রিসাইডিং অফিসারগণ কেন্দ্র ভিত্তিক যে ফলাফল ঘোষণা করেন তাতে আমি ‘মোটর সাইকেল’ প্রতীকে ১১ টি কেন্দ্রে ৫ হাজার ৯০১ টি ভোট পেয়ে নির্বাচিত হই। আমার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি হিসেবে ‘জোড়া পাতা’ প্রতীকে ভোট পান ৫ হাজার ৮২৭ ভোট। ভোটের এই ফলাফল জেলা পুলিশের ‘বিশেষ শাখা’ সহ সরকারি বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনেও উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু উপজেলা রিটার্নিং অফিসার ওইদিন (সোমবার) দিবাগত রাত ২টায় যে ফলাফল ঘোষণা করেন তাতে ‘জোড়া পাতা’ প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মির কাশেমকে চেয়ারম্যান হিসেবে জয়ী দেখানো হয়।

তিনি অভিযোগ তুলেন, উপজেলা রিটার্নিং অফিসার ও প্রিসাইডিং অফিসারগণ ষড়যন্ত্রমূলকভাবে কতিপয় ক্ষমতাসীন বিশেষ ব্যক্তি মহলের যোগসাজশে আমার নির্বাচনী ফলাফল পাল্টে দিয়েছেন। যা অবৈধ ও বে-আইনি। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট মহলের কাছে আমি লিখিতভাবে আবেদন করেছি।

এসময় ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান নেতা, ইউনিয়নের সাধারণ ভোটার ও মুরাদের সমর্থকগণ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাধারা/এআই

ট্যাগ :

close