বাংলাদেশ, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কন্টেইনার পরিবহনে ‌‘পলো-৯’ এর রেকর্ড

প্রকাশ: রবিবার, ১৬ জানুয়ারি, ২০২২

বাংলাধারা প্রতিবেদক »

২০২১ সালে চট্টগ্রাম বন্দর জেটিতে ভিড়েছিলো ৪ হাজার ২০৯টি জাহাজ। এর মধ্যে সবেচেয়ে বেশি পণ্য নিয়ে আমদানি ও রপ্তানি খাতে ব্যবহৃত হয়েছে পলো-৯ কন্টেইনার জাহাজ। সবমিলিয়ে আমদানি এবং রপ্তানি পণ্য নিয়ে ৩ হাজার ৪৩০ একক কন্টেইনার পরিবহন করেছে জাহাজটি যা ছিল গত বছর কন্টেইনার পরিবহনে রেকর্ড সংখ্যক।

গত বছরের ২ জানুয়ারি পলো-৯ জাহাজটি ১১১৪ একক কন্টেইনার আমদানি পণ্য চট্টগ্রাম বন্দর জেটিতে ভিড়ে। এরপর ২৩১৬ একক রপ্তানি কন্টেইনার পণ্য নিয়ে বন্দর জেটি ছাড়ে জাহাজটি। চট্টগ্রাম বন্দর জেটিতে পলো-৯ এর মতো বড় জাহাজ গুলো কন্টেইনারবাহী পণ্যগুলো আমদানি ও রপ্তানি করলে ব্যয় এবং সময় সাশ্রয় বলে জানান শিপিং এজেন্টরা।

চট্টগ্রাম বন্দরে ৮৫টি কন্টেইনার জাহাজ দিয়ে বিভিন্ন রুটে পণ্য পরিবহন করে দেশি-বিদেশি জাহাজ পরিচালনাকারীরা। এর মধ্যে সবচে বড় জাহাজ দিয়ে পণ্য পরিবহন করে মায়ের্কস লাইন।

জাহাজটির শিপিং এজেন্ট ক্রাউন নেভিগেশন কম্পানি লিমিটেডের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর সাহেদ সারোয়ার জানান, ২০২১ সালে আমদানি রপ্তানি সব মিলিয়ে ৪ হাজার ২০৯ একক কন্টেইনার জাহাজ পরিবহন করেছে পলো-৯ কন্টেইনার জাহাজ।এটি সর্বোচ্চ রের্কড সংখ্যক।

তিনি আরও বলেন, পণ্য বেশি পরিবহনে বড় জাহাজগুলো সবসময় সুবিধাজনক কারণ— এতে যেমন সাশ্রয়ী হয় আবার সময়ের পরিমাণ ও কম লাগে।ছোট জাহাজগুলোতে ব্যয় অনেক বেশি, এছাড়া কালক্ষেপণ হয়। তাই পলো ৯ এর মতো জাহাজ গুলো বন্দর জেটিতে প্রবেশ করলেও আমদানিকারক, বন্দর ব্যবহারকারী সংস্থাগুলোর লাভ।

বাংলাধারা/এসএএআর

ট্যাগ :

close