logo
তবে কি ভাগ্য ফিরছে বলিউডের!
#

সুমন বৈদ্য »

বলিউডের এমনিতে চরম খারাপ অবস্থা। তার উপর রিমেইক সিনেমার ছড়াছড়ি। কিন্তু রিমেইক সিনেমা দিয়ে হলেও বলিউডের সেই হারিয়ে যাওয়া ভাগ্য ফিরতে শুরু করছে অজয় দেবগনের ‌‘দৃশ্যম ২’ হলে রিলিজ পাওয়ার পর থেকে। ৫০ কোটি টাকা দিয়ে নির্মিত এই সিনেমা ইতোমধ্যে ১০৮.০২ কোটি কামিয়ে ফেলেছে। যা এখন বলিউডের ২০২২ সালের নবম তম সর্বোচ্চ আয়কারী সিনেমার একটি হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর অন্যদিকে কার্তিক আরিয়ান অভিনীত তেলুগু ছবি ‘আলা ভাইকুন্টাপুরামুলু’ ছবির রিমেইক ‘শেহজাদা’ টিজার নিয়ে হচ্ছে চরম সমালোচিত। প্রথমে অজয় দেবগনকে দিয়ে শুরু করা যাক।

তাই এটির রেশ যেতে না যেতেই অজয় দেবগন আবার নিয়ে এসেছে তার নতুন ছবির টিজার ‘ভোলা’। সিনেমাটি ২০১৯ সালে তামিলে মুক্তি পাওয়া ‘কাইথি’ সিনেমার অফিসিয়াল রিমেইক। অফিসিয়াল রিমেইক হলেও অজয় দেবগন এখানে গল্প থেকে শুরু করে অনেক কিছুরই পরিবর্তন এনেছেন। এখানে টিজারের গল্পে যা দেখানো হয়েছে তা কিন্তু অরজিনাল সিনেমা ‘কাইথি’ সিনেমায় নেই। এবং এখানে পুলিশি চরিত্রে পুরুষ চরিত্র বদলে নারী চরিত্র করা হয়েছে। যেটিতে তাবুকে অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে।

টিজারটি শুরু হয় কাইথি সিনেমার মতোন। ‘একটি ছোট্ট বাচ্চা মেয়েকে বলা হয় তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে পড়তে , সকালে তার সাথে কেউ দেখা করতে আসবে। এরপর এই দেখা করা ব্যক্তিটি কে? কেনো তার সাথে দেখা করতে আসছে?— এসব দোলাচল ঘুরতে থাকে তার মাথায়। এরপর আসতে আসতে বেরিয়ে আসতে থাকে সেই ব্যক্তিটি। কিন্তু এখানে মজার ব্যাপার হলো কে সেই এই ব্যক্তি এবং তার মুখমণ্ডল পরিচালক তা সবার অগোচরে রেখে দেয়।

টিজারে এইসব কিছু বাদেও ব্যাকগ্ৰাউন্ড মিউজিক দিয়েছেন কেজিএফ মিউজিক পরিচালক খ্যাত রবি বাসুর। যা ছিল অসাধারণ, যা অজয় দেবগনের ক্যারেক্টারটি সামনে আসার সময় অনেক দারুণ দেখাচ্ছিল‌। আরেকটি মজার ব্যাপার হলো পরিচালক এখানে অজয় দেবগনের ক্যারেক্টারটি সামনে আসার সময় পিছনে নেরেটরের ব্যবস্থা করে যা শুনতে এবং অজয় দেবগনের ভোলা ক্যারেক্টারটির সাথে পরিচয় হতে দর্শকদের সত্যিই আগ্ৰহ করবে। যেমনটা কিন্তু ‘কাইথি’ সিনেমায় ছিল না।

এখন যেই পরিচালকের কথা এতোক্ষণ ধরে বলা হচ্ছে তিনি আর কেউ নন, অজয় দেবগনই। এর আগে ‘রানওয়ে ৩৪’, ‘শিবায়’,— এই ধরনের সিনেমা এর আগেও বানিয়েছেন। তার সিনেমার মধ্যে একটা ইন্টারেস্টিং ব্যাপার হলো টেকনিক্যাল কাজ এবং রিস্কি অ্যাকশন দৃশ্য। যা এর আগেও তার পরিচালিত সিনেমার মধ্যে ও দেখা গিয়েছিল। এইবার ও তার ব্যাতিক্রম হয়নি। টিজারের শেষ দৃশ্যে যে অ্যাকশন দৃশ্য রাখা হয়েছে তা অজয় ভক্তদের নিরাশ করবে না।

এদিকে শোনা যাচ্ছে, ‘ভোলা’ সিনেমাটি তামিল সিনেমার রিমেইক হলেও অজয় দেবগন এটিকে নিয়ে নতুন একটি ইউনির্ভাস তৈরি করবে সামনে। এখানে যে ভোলা ক্যারেক্টারটি আছে তা দিয়ে অজয় দেবগন সামনে সিক্যুয়েল আনার চেষ্টা করবে। এবং সেটিকে নিজের মতো করে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে এবং সেটির কোনো রিমেইক হবে না। এখন দেখার বিষয় হলো এই সিনেমাটি বলিউডের শক্ত অবস্থান গড়তে কতোটা সাহায্য করে।

অন্যদিকে অজয় দেবগনের রিমেইকর মধ্যে ভালো সিনেমা দিয়ে বলিউডকে বাঁচানোর চেষ্টা করলেও কার্তিকের নতুন সিনেমা নিয়ে হচ্ছে হাসাহাসি। ১ মিনিটের এই টিজারে কার্তিকের এন্ট্রি সিন ছিল ঘোড়া করে একটি বাড়িতে প্রবেশ করছে যা সম্পূর্ণ বাজে ভিএফএক্সের ব্যবহার ছিল সাথে অ্যাকশন লুক সম্পূর্ণ ছিল আল্লু অর্জুনের কপি। এখানে সবচেয়ে বড় দুর্বল জায়গা হলো ভিএফএক্স এবং ঘুরে ফিরে সেই বলিউড বস্তাপচা রোমান্টিক দৃশ্য। সাথে রয়েছে বাজে ব্যাকগ্ৰাউন্ড সাউন্ড। এছাড়াও গল্পে কোনো পরিবর্তন রাখা হয় নি। এবং ঘুরে ফিরে ছিল সেই বস্তাপচা রোমান্টিক সিনেমার মতো নায়কের ক্যারেক্টার নাম নিয়ে শো ডাউন দেখানোর ভাব

রোহিত ধাওয়ান পরিচালিত এই সিনেমায় আরো রয়েছে মোনিশা কইরালা, পরেশ রাওয়াল, কৃতি স্যানন এবং সচীন খেদেকার ।বলিউডের মার্কেটের যা অবস্থা তাতে যদি এইরকম সিনেমা হয়, তাহলে বলিউডের ভবিষ্যতে কি হবে তা আন্দাজ করায় মুশকিল।